চর্যাপূর্ব সাহিত্য ও চর্যাপদ – পর্ব ৩

টার্গেট বাংলা গ্রুপে আয়োজিত SSC CLASS এ সদস্যদের দ্বারা আলোচিত নানা বিষয় থেকে উঠে আসা প্রশ্নোত্তর নিয়ে আমাদের আজকের প্রতিবেদন। আমাদের আজকের আলোচ্য চর্যাপূর্ব সাহিত্য ও চর্যাপদ । আজ আলোচনার শেষ পর্ব।

প্রশ্নোত্তর –

১৫১] রাধার উল্লেখ পাওয়া যায় কোন গ্রন্থে ?

উত্তর : হালের গাহাসত্তসই বা গাথা সপ্তশতী

১৫২] চর্যাপদের সমসাময়িক আর একটি সাহিত্যর নাম কি ?

উঃ ডাকার্ণব

১৫৩] চর্যাপদ এ চন্দ্র ও সূর্য্য কিসের প্রতীক ?

উঃ গ্রাহ্য আর গ্রাহ্যকত্বের প্রতীক

১৫৪] জয়দেবের কাব্যে সর্গ সংখ্যা কত ?

উঃ ১২

১৫৫] গাথাসপ্তশতী তে শ্লোক সংখ্যা কত ?

উঃ প্রায় ৭০০

১৫৬] পাদাকুলকের মাত্রা সংখ্যা কত?

উঃ ১৬

১৫৭] চর্যাকারদের নমের শেষে পাদ বা পা ব্যাবহার করা হয় কেন ?

উঃ সম্মানজনক বৌদ্ধ সহজিয়া সাধকগোষ্ঠীর ব্যাবহৃত টোটেম।

১৫৮] কত নং পদ এ কামরূপের উল্লেখ আছে ?

উঃ ২ নং পদে

১৫৯] চর্যাপদের সর্বশেষ পদকর্তার নাম কি ? এবং তাঁর পদের সংখ্যা কত ?

উঃ শবর পা।  ৫০

১৬০] শেষ পদের রাগ কি ?

উঃ রামক্রি

১৬১] ‘চর্যাপদ’ কেন নেপালে পাওয়া গেল ?

উঃ বখতিয়ার খিলজির নেতৃত্বাধীন তুর্কিদের অত্যাচার, ধর্মকেন্দ্রিক পুঁথি পুরিয়ে ফেলার তাগিদ ইত্যাদিই প্রধান কারন৷

১৬২] জয়দেব কার কাছে কী উপাধি পেয়েছিলেন ?

উঃ  লক্ষ্মণসেনের কাছে ‘কবিরাজ’ উপাধি

১৬৩] তন্ত্রী পা রচিত পদটি কত সংখ্যক ?

উঃ ২৫

১৬৪] চর্যার ভাষা বাংলা নয় কে বলেছেন ?

উঃ বিজয়চন্দ্র মজুমদার।

১৬৫] গীতগোবিন্দের মূল বিষয়বস্তু কী ?

উত্তর : রাধাকৃষ্ণের বসন্তরাস

১৬৬] পটমঞ্জরী রাগে রচিত পদের সংখ্যা

উঃ ১১ টি

১৬৭ ] চর্যাপদে উল্লেখিত প্রসাধন ও অলঙ্কারের নাম কি ?

উঃ তেল, আয়না, পুষ্পরেনু  হল প্রসাধন।  নুপুর,  কুন্ডল, কাঁকন, সোনা, রূপা, মুক্তাহার

১৬৮] তিব্বতী অনুবাদ আবিষ্কার করেন কে ?

উঃ প্রবোধচন্দ্র বাগচী

১৬৯] সদুক্তিকর্ণামৃতে কয়টি প্রবাহ আছে ?

উঃ  ৫

১৭০] চর্যাপদে উল্লেখিত কয়েকটি সামাজিক অনুষ্ঠানের নাম কি ?

উঃ ধর্মীয় উৎসব, বিয়ে

১৭১] শেষ পাতার ক্রম কত ?

উঃ ৬৯

১৭২] চর্যাপদের ভাষাকে কে বাংলা ভাষা বলে দাবি করেছেন ?

উঃ সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়

১৭৩] চর্যাপদের পুঁথি শুরু হয়েছে কোন শব্দ দিয়ে ?

উঃ শ্রী বজ্রযোগিনী

১৭৪] চর্যাপদ কোন ভাষায় রচিত ?

উঃ বঙ্গ কামরূপী ভাষায়

১৭৫] চর্যার স্তুতিবাচক অঙ্গের নাম কি ?

উঃ বিরুদ্ধ

আরো পড়ুন

১৭৬] “মোহোর বিগোআ কহণ ন জাই” এখানে নঞর্থক বাক্যাংশ কোনটি ?

উঃ ন জাই

১৭৭] চর্যাপদের সংস্কৃত টীকাকার মুনি দত্তের টীকার নাম কী ?

উঃ নির্মলগিরাটিকা

১৭৮] ‘জামে কাম কি কামে জাম’ ….কত সংখক পদ ?

উঃ ২২

১৭৯] চর্যাপদের পুঁথি শুরু হয়েছে কোন্ শব্দ দিয়ে ?

উঃ নমঃ শ্রী বজ্রযোগিন্য

১৮০] কত তম বারে নেপাল যাত্রায় হরপ্রসাদ শাস্ত্রী চর্যাপদ আবিষ্কার করেন ?

উঃ তৃতীয়

১৮১] চর্যাপদের ব্যবহৃত উল্লিখিত প্রবাদের সংখ্যা কত ?

উঃ ৬

১৮২] হরপ্রসাদ শাস্ত্রী চর্যার পুঁথি আবিষ্কার করেন কতবার নেপাল যাত্রা করে ?

উঃ ৩

১৮৩] চর্যাপদ কোন অক্ষরে লিখিত ?

উঃ নেওয়ারী

১৮৪] কোন কবি নিজেকে রাইতু বলে দাবি করেন ?

উঃ ভুসুক পা

১৮৫] ‘তত্ত্বস্বভাবদোহাকোষগীতিকাদৃষ্টিনাম’ – গ্রন্থটির রচয়িতা কে ?

উঃ লুই পা

১৮৬] রাজারা কোন ধর্মের অনুসারী ছিলেন ?

উঃ ব্রাহ্মণ্য ধর্ম

১৮৭] চর্যাপদে “পুলিন্দ” শব্দের গূঢ় অর্থ কী ?

উঃ নপুংসক

১৮৮] “তিশরণ ণাবী কিঅ অঠকমারী” – এখানে ‘অঠকমারী’ মানে কি হতে পারে ?

উঃ আটকে মেরে

১৮৯] চাটিল পা কত নং পদ রচনা করেন ?

উঃ ৫

১৯০] চর্যার পুথির মলাটে নাগরী হরফে কি লেখা ছিল ?

উঃ চর্যাচর্যটিকা

১৯১] রাহুলজির আবিষ্কৃত কোন কোন নতুন কবির চর্যাগান পাওয়া যায় ?

উঃ বিনয়শ্রী /সরুঅ /অবধূ

১৯২] চর্যাভাষা হিন্দি নয় কে প্রমান করেন ?

উঃ সুনীতিকুমার

১৯৩] বৌদ্ধতান্ত্রিক সাহিত্যিকদের প্রতি গবেষকদের দৃষ্টি আকর্ষণ কে প্রথম করেন ? তাঁর রচনার নাম ও প্রকাশ সাল কত ?

উঃ রাজা রাজেন্দ্রলাল মিত্র। The Sanskrit Buddhist literature in Nepal। ১৮৮২ খ্রিঃ

১৯৪] ভুসুকু ভণিতা যুক্ত পদের সংখ্যা ক’টি ?

উঃ ৮

১৯৫] অতীশ দীপঙ্করের গুরু ছিলেন কোন পদকর্তা ?

উঃ শান্তি পা

১৯৬] চর্যাপদের একটি পদে ‘বেণি’ শব্দের উল্লেখ পাওয়া যায়।  ‘বেণি’ শব্দের অর্থ কী ?

উঃ ২

১৯৭] রাহুল সাংকৃত্যায়ন তার কোন গ্রন্থে চর্যাপদকে হিন্দির সামগ্রী বলে গ্রহণ করেছেন ?

উঃ ‘হিন্দি কাব্যধারা’

১৯৮] সুভাষিত রত্নকোষ এর সম্পাদক কে?

উঃ এফ ড . টমাস সম্পাদনা করে ১৯১২ সালে প্রকাশ করেন।

১৯৯] চর্যাপদকে কেন্দ্র করে একটি ছোট গল্পের নাম ও রচয়িতার নাম লেখ

উঃ চর্যাপদের হরিণী – দীপেন্দ্রনাথ বন্দোপাধ্যায়

২০০] চর্যাপদের ভাষা

হরপ্রসাদ শাস্ত্রী নেপালের রাজগ্রন্থাগার থেকে চর্যাপদের পুথি ১৯০৭ খ্রী: অাবিষ্কার করেন। শুধু বাংলা সাহিত্যের না নব্যভারতীয় আর্যভাষার প্রাচীনতম নিদর্শন চর্যাপদ। কিন্তু চর্যাপদ কোন ভাষায় লেখা ? সমালোচকদের মতে প্রাচীন বাংলা ভাষায় চর্যাপদগুলি লেখা হলেও চর্যাপদে অবহট্টের স্পর্শ আছে ফলত চর্যাপদের ভাষা পুরোপুরি বাংলা তা অনেকে অস্বীকার করেন। অনেকে চর্যাপদের ভাষাকে প্রাচীন ওড়িয়া, প্রাচীন অসমিয়া বলে মনে করেন। কিন্তু ড. সুনীতিকুমার চট্টোপাধাযায় তাঁর ”The Origin and Devolopment of the Bengali language” বই তে প্রমাণ করেন চর্যাপদের ভাষা বাংলা। সুকুমার সেন তাঁর ”বাঙ্গলা সাহিত্যের ইতিহাস” বই তে বলেছেন,  ”চর্যাগীতির ভাষাকে প্রাচীন ওড়িয়া বা প্রাচীন অসমিয়া বলিলেও অন্যায় হয় না” (পৃ: ৫৫, খন্ড ১)

আরো পড়ুন

২০১] নবচর্যাপদে পদ সংখ্যা কত ?

উঃ ২৫০ টি পদ আবিষ্কার হলেও তার মধ্য থেকে বেছে ৯৮ টি পদ সংকলন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত হয়।

২০২] নেপাল থেকে প্রাপ্ত পুঁথিতে চর্যাপদের নাম কি ছিল ?

উঃ এ নিয়ে অনেক মতপার্থক্য আছে। কিন্তু এখন অবধি ‘চর্যাচর্যবিনিশ্চয়’ (চর্যাশ্চর্যবিনিশ্চয় নয়) নামটিই গৃহীত

২০৩] চর্যায় সাধারণত কত মাত্রার ছন্দ বেশি ব্যবহৃত হয়েছে ?

উঃ ১৬ মাত্রা

২০৪] পদকর্তার নাম কুক্কুরী পা কেন ?

লোক প্রচলিত আছে তাঁর সহচারী যোগিনী পুর্বজন্মে লুম্বিনী বনে কুক্কুরী থাকায় তাঁর নাম কুক্কুরী

২০৫] চর্যাগীতিকে তারাবলী বলার কারণ কি?

উঃ তৎকালের প্রচলিত গীতের ৬ টি অঙ্গ থাকত – স্বর, বিরুদ, পদ, তেনক, পাটক ও তাল।এ ৬ টি অঙ্গের সব কয়টি চর্যাপদের সম্পর্কিত গানে থাকতে হবে এমন কোন কথা নেই। পদ ও তাল চর্যাগীতিতে অবশ্যই থাকতো বলে একে তারাবলী বলা হতো।

২০৬] কোন পদকর্তার পদ পাওয়া যায় নি ?

উঃ লাড়ীডোম্বী পার

২০৭] কোন ভাষার ইতিহাসে বাংলার মত চর্যাপদ পাঠ্য ?

উঃ অসমীয়া সাহিত্য

২০৮] ধোয়ীর লেখা পবনদূত কোন ছন্দে রচিত ?

উঃ মন্দাক্রান্ত ছন্দ

SSC CLASS – by Target Bangla, Thanks to all of the participants

1 Comment

Leave a Reply